• বীমা সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সৃষ্টি বাংলাদেশের সর্বপ্রথম বীমা ব্লগে আপনাকে স্বাগতম
আজ বৃহস্পতিবার | ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ | ৪ আশ্বিন ১৪২৬ বঙ্গাব্দ | সময়ঃ ১০:১৮ পূর্বাহ্ন

Photo
এমডি সংকটে রয়েছে বাংলাদেশের বীমা খাত

পদে বহাল থাকা নিয়ে সংকটে রয়েছেন অধিকাংশ বীমা কোম্পানির মুখ্য নির্বাহীরা (এমডি)। নতুন আইন অনুযায়ী একদিকে ৬৭ বছরের বয়সসীমা অন্যদিকে শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার শর্ত অনেকেই পরিপালন করতে পারছেন না। এতে এমডি সংকটে পড়েছে অনেক বীমা প্রতিষ্ঠান।

এদিকে অধিকাংশ প্রতিষ্ঠানের এমডি নতুন আইনের শিক্ষাগত যোগ্যতার চাহিদা পূরণ করতে না পারায় আইন সংশোধনের উদ্যোগ নিয়েছে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ (আইডিআরএ)।

জানা গেছে, সম্প্রতি বীমা প্রতিষ্ঠানে এমডি পদে নিয়োগ ও যোগ্যতার ওপর একটি প্রবিধান গেজেট আকারে প্রকাশ হয়। এ নতুন আইন অনুযায়ী বীমা কোম্পানির এমডি পদে বয়স সীমা ৬৭ বছর নির্ধারণ করে দেওয়া হয়।  

এদিকে শুধু বয়সসীমাই নয়, শিক্ষাগত যোগ্যতার ক্ষেত্রেও বিপাকে আছেন অধিকাংশ বীমা এমডিরা। নতুন আইনে এমডি নিয়োগলাভের জন্য শিক্ষাগত যোগ্যতা ও অভিজ্ঞতার ক্ষেত্রে যেসব শর্ত দেওয়া হয়েছে তার মধ্যে উল্লেখযোগ্য একটি শর্ত হলো- কোন স্বীকৃত বিশ্ববিদ্যালয় হতে অন্যূন তিন বছর মেয়াদী স্নাতক ও এক বছর মেয়াদী স্নাতকোত্তর ডিগ্রি বা চার বছর মেয়াদী ¯স্নাতক বা সমমানের ডিগ্রির অধিকারী হতে হবে।

এক্ষেত্রে অধিকাংশ এমডি চার বছর মেয়াদী ডিগ্রিধারী নন কারণ তৎকালীন সময়ে ডিগ্রি দুই বছর ও স্নাতক ছিল ৩ বছর। এ শর্তের কারণে অধিকাংশ এমডি তাদের পদে থাকতে পারছেন না। এ পরিস্থিতি বিবেচনায় আইডিআরএ আইনটি সংশোধনের উদ্যোগ নিয়েছে।

এ ব্যাপারে আইডিআরএর একজন সদস্য জানান, এখনকার এমডিরা যখন ¯স্নাতক কিংবা ডিগ্রী করেছেন তখন তা ৪ বছর মেয়াদী ছিল না। বর্তমানের প্রেক্ষাপটে আইনটি করা হয়েছে। এ অবস্থায় অধিকাংশ এমডি শর্ত পূরণ করতে পারছেন না। এরই পরিপ্রেক্ষিতে আইডিআরএ আইনটি সংশোধনের চিন্তা করছে।

এ ব্যাপারে বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স এ্যাসোসিয়েশনের (বিআইএ) সভাপতি শেখ কবির হোসেন জানান, বীমা খাতে পর্যাপ্ত দক্ষ জনবল নেই। ফলে শর্তানুযায়ী এমডি পদে থাকতে হলে অনেকেই বাদ পড়বেন। এতে এ খাতে বড় ধরনের শূন্যতা তৈরি হবে। তবে দক্ষ জনবল তৈরির বিকল্প নেই বলেও জানান তিনি।

এছাড়া বীমা কোম্পানিতে এমডি পদে নিয়োগের অযোগ্যতাগুলো হলো- তিনি বাংলাদেশের নাগরিক না হন; তিনি শারীরিক বা মানসিক অসামর্থ্যরে কারণে দায়িত্ব পালনে অক্ষম হন; তিনি কোন উপযুক্ত আদালত কর্তৃক দেউলিয়া বা অপ্রকৃতিস্থ বলে ঘোষিত হন; তিনি কোন ব্যাংক বা আর্থিক প্রতিষ্ঠান কর্তৃক ঋণ খেলাপী হিসেবে ঘোষিত হন; তিনি নৈতিক স্খলনজনিত কোন অপরাধের দায়ে দোষী সাব্যস্ত হয়ে আদালত কর্তৃক ৬ মাস বা তদূর্ধ্ব মেয়াদের কারাদণ্ডে দণ্ডিত হন এবং দণ্ড হতে মুক্ত লাভের পর ৫ বছর অতিক্রান্ত না হয়; তার বয়স ৪০ বছর পূর্ণ না হওয়া বা ৬৭ বছর পূর্ন হয়; তিনি অন্য কোন বীমা কোম্পানি বা আর্থিক প্রতিষ্ঠানে থাকাকালীন তার পদের ক্ষমতার অপব্যবহার অথবা দুর্নীতির কারণে অপসারিত হন।


-- ব্লগার মোঃ হাসান এর অন্যান্য পোস্টঃ --
  • সর্বশেষ ব্লগ
  • জনপ্রিয় ব্লগ
1 1 4 9 3
আজকের প্রিয় পাঠক
1 0 5 7 0 3 2 0
মোট পাঠক