• বীমা সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সৃষ্টি বাংলাদেশের সর্বপ্রথম বীমা ব্লগে আপনাকে স্বাগতম
আজ সোমবার | ০৬ জুলাই, ২০২০ | ২২ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | সময়ঃ ০৬:১৭ পূর্বাহ্ন

Photo
ডিজিটাল পদ্ধতিতে ঘরে বসেই খোলা যাবে বীমা পলিসি, ব্যাংক হিসাব ও বিও অ্যাকাউন্ট

শুধু জাতীয় পরিচয়পত্রের মাধ্যমে যেকোনো ব্যক্তি ঘরে বসে মাত্র ৫ মিনিটেই ব্যাংক হিসাব, পুঁজিবাজারের বিও (বেনিফিশারি ওনার্স) হিসাব ও বীমা পলিসি খুলতে পারবেন।

একই সঙ্গে ব্যাংকবহির্ভূত আর্থিক প্রতিষ্ঠান, মোবাইল ব্যাংকিংসহ যে কোনো ডিজিটাল আর্থিক সেবাদাতারা এ পদ্ধতিতে দ্রুত অ্যাকাউন্ট খুলতে পারবেন। এ জন্য গ্রাহককে নির্দিষ্ট শাখায় যেতে হবে না। ঘরে বা অফিসে বসে ই-কেওয়াইসি পদ্ধতিতে অ্যাকাউন্ট খোলা যাবে। এ লক্ষ্যে বাংলাদেশ ফাইন্যান্সিয়াল ইন্টেলিজেন্স ইউনিট (বিএফআইইউ) ই-কেওয়াইসি নীতিমালা প্রকাশ করেছে।  বুধবার এ-সংক্রান্ত নীতিমালা সব ব্যাংকের প্রধান নির্বাহীদের কাছে পাঠানো হয়।

কেওয়াইসি বা 'গ্রাহককে জানো' হলো, গ্রাহকের বিষয়ে বিস্তারিত তথ্য সংগ্রহ পদ্ধতি। বর্তমানে অ্যাকাউন্ট খুলতে গেলে বেশ কয়েক পৃষ্ঠার ফরম পূরণ করতে হয়। সেখানে কী লেখা থাকে অনেক ক্ষেত্রে গ্রাহক তা জানেন না। তবে ই-কেওয়াইসি পূরণ করা যাবে মাত্র পাঁচ ধাপে। সংশ্নিষ্ট প্রতিষ্ঠানের শাখা বা এজেন্ট পয়েন্টে গিয়ে কিংবা এজেন্ট সেবাগ্রহীতার কাছে গিয়ে অ্যাকাউন্ট খুলবেন। এমনকি ব্যাংকের নির্দিষ্ট অ্যাপ ব্যবহার করে গ্রাহক নিজেই হিসাব খুলতে পারবেন। তবে এ ক্ষেত্রে গ্রাহকের বিভিন্ন অ্যাঙ্গেলের 'মুভিং' ছবি দিতে হবে। পরে জাতীয় পরিচয়পত্রের ছবির সঙ্গে মিলে গেলে স্বয়ংক্রিয়ভাবে হিসাব খুলে যাবে। সেই সঙ্গে গ্রাহকের প্রতি হিসাব খোলা ও কেওয়াইসি সংরক্ষণের খরচ প্রায় ৫০ হতে ৮০ শতাংশ কমে যাবে।

নীতিমালা অনুযায়ী, পাঁচটি ধাপে ই-কেওয়াইসি প্রক্রিয়া অনুসরণ করে একজন গ্রাহক আর্থিক হিসাব খুলতে পারবেন। আর্থিক সেবা প্রদানকারী প্রতিষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে, অথবা আর্থিক সেবাদানকারী প্রতিষ্ঠানের কর্মকর্তা বা এজেন্টের বাসায় উপস্থিত হয়ে অথবা ঘরে বসে নিজে নিজেই হিসাব খুলতে পারবেন গ্রাহকরা। ফলে ই-কেওয়াইসি চালুর কারণে অতি সহজেই আর্থিক সেবা মানুষের দোরগোড়ায় পৌঁছানোর প্রক্রিয়া আরও একধাপ এগিয়ে গেল।

বিএফআইইউ বলছে, বর্তমান সরকারের ভিশন-২০২১ ও ডিজিটাল বাংলাদেশ বিনির্মাণের লক্ষ্য বাস্তবায়নে প্রতি ঘরে ঘরে স্বল্প খরচে আর্থিক সেবা প্রদানের পাথে সহায়ক হবে ই-কেওয়াইসি প্রক্রিয়া। এছাড়া এর ফলে আর্থিক প্রতিষ্ঠানসমূহে সুশাসন নিশ্চিত, আর্থিক অন্তর্ভুক্তিতে প্রবৃদ্ধি অর্জন, আর্থিক খাতে মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসী কার্যে অর্থায়ন ঝুঁকি নিয়ন্ত্রণ করা সম্ভব হবে।

সম্প্রতি সরকার কর্তৃক ‘মানিলন্ডারিং ও সন্ত্রাসে অর্থায়ন প্রতিরোধ বিষয়ক জাতীয় কৌশলপত্র’ প্রকাশিত হয়েছে। ওই কৌশলপত্রের স্ট্রাটেজি নম্বর-০৮ এর অ্যাকশন আইটেম নং-০৯ এ রিপোর্টিং সংস্থাসমূহের জন্য ডিজিটাল কেওয়াইসি বা ইকেওয়াইসি ২০২০ সালের ডিসেম্বরের মধ্যে বাস্তবায়নের জন্য বিএফআইইউকে দায়িত্ব প্রদান করা হয়।

নীতিমালায় আঙুলের ছাপ ও মুখচ্ছবির ম্যাচিংয়ের মতো দুটি পদ্ধতি উল্লেখ রয়েছে। তবে ব্যাংক বা অন্যান্য আর্থিক প্রতিষ্ঠান চাইলে আইরিশ ম্যাচিংয়ের মতো পদ্ধতিও গ্রহণ করতে পারবে। তবে এ পদ্ধতিতে জাতীয় পরিচয়পত্র ছাড়া হিসাব খোলা যাবে না। যাদের জাতীয় পরিচয়পত্র নেই তাদের বিদ্যমান পদ্ধতিতে হিসাব খুলতে হবে।

ই-কেওয়াসি চালুর আগে বিএফআইইউ ১৯টি ব্যাংক একটি আর্থিক প্রতিষ্ঠান ও একটি মোবাইল ফিনান্সিয়াল সার্ভিস প্রদানকারী সংস্থা নিয়ে ৩৩টি জেলার ৫২টি স্থানে পাইলট প্রকল্প বাস্তবায়ন করে। পাইলট প্রকল্পের অভিজ্ঞতার আলোকে এবং বিভিন্ন অংশীজনদের সুপরিশের ভিত্তিতে গাইডলাইন প্রণয়ন করা হয়েছে।  


-- ব্লগার মন্জুর আলী শাহ্ এর অন্যান্য পোস্টঃ --
আমার সম্পর্কে
  • সর্বশেষ ব্লগ
  • জনপ্রিয় ব্লগ
5 5 1 7
আজকের প্রিয় পাঠক
2 4 2 9 2 9 0 8
মোট পাঠক