• বীমা সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সৃষ্টি বাংলাদেশের সর্বপ্রথম বীমা ব্লগে আপনাকে স্বাগতম
আজ মঙ্গলবার | ০৭ জুলাই, ২০২০ | ২৩ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | সময়ঃ ০৯:১৫ অপরাহ্ন

Photo
বীমা ব্যবসায় টিকে থাকার কৌশল

মোশাররফ হোসেন: ১.পেশাগত জ্ঞান ও ব্যক্তিত্ব বিকাশঃ নিজের ব্যক্তিত্ব বিকাশের লক্ষ্যে জ্ঞানের পরিধি বাড়ানোর জন্য অনেক পড়াশোনা করতে হবে। ব্যবসা সংক্রান্ত প্রশিক্ষনে /আলোচনায় অংশ নিতে হবে যাতে নিজের ব্যবসায়িক জ্ঞানের ঘাটতি না থাকে। পেশাগত জ্ঞান যত বাড়বে গ্রাহকদের মনও তত জয় করতে পারবেন।

নিজের ব্যক্তিত্ব বিকাশ ঘটার সাথে সাথে আপনার বীমা ব্যবসায়ের বিকাশ ঘটবে, ব্যবসায়ের পরিধিও বাড়বে। পেশায় ও ব্যক্তিত্বে আপনি আরও উঁচুতে উঠে যাবেন।

২.ইতিবাচক দৃষ্টিভঙ্গিঃ আপনি যাকে বীমা করালেন, তার লাভই বেশি, আপনার লাভ সামান্য। সুতরাং দৃষ্টিভঙ্গি ইতিবাচক রাখুন এবং ভাবুন গ্রাহকদের একটি বড় লাভের বিনিময়ে আপনার একটি ছোট লাভ হচ্ছে। আপনার মানসিকতা হবে এই রকম যে,আপনি বীমার মাধ্যমে গ্রাহকের আর্থিক অনিশ্চয়তা দূর করছেন অর্থাৎ তার কল্যাণ করছেন। একান্ত বিশ্বাসের সাথে আপনার লেগে থাকা কখনও ব্যর্থ হতে পারেনা। আপনি গ্রাহকদের কল্যাণের কথা ভাবুন, তাহলে গ্রাহকও আপনার কথা ভাববেন। আর এই মানসিকতার জন্য মহান আল্লাহ তায়ালা ও আপনাকে সাহায্য করবেন।

৩.প্রত্যাখ্যানে করনীয়ঃ বিক্রয় পেশায় প্রত্যাখ্যান একটি স্বাভাবিক বিষয়। "Rejection is natural by product in sales profession ". কোন ব্যবসার প্রস্তাবনা যথাযথ ভাবে উপস্থাপন করেও যদি আপনি অনুকূল সাড়া না পান, তাহলে মনে করতে হবে যে,এই ব্যবসা থেকে কিছু পাওয়ার সঠিক সময় এখনো হয়নি। শুধু এর পেছনে লেগে থাকতে হবে। কয়েক মাস পর পর আবার বিষয়টি উপস্থাপন করতে হবে, তাদের কাছেই যারা প্রত্যাখ্যান করেছে। হয়তো দেখবেন সময় বদলে গিয়েছে, কিছু দিন আগেই যিনি আপনাকে প্রত্যাখ্যান করেছে, তিনিই হয়তো বলছেন আগে যদি এখনকার মতো ভাল করে বুঝাইতেন তাহলে তো আগেই করে ফেলতাম। কোন গ্রাহক প্রত্যাখ্যান করলে নিজেকে এই বলে সংযত করুন যে,আল্লাহ তায়ালা যেন তাকে বীমার কল্যাণ সম্পর্কে সঠিক বুঝ দান করেন। প্রত্যাখ্যান আপনার প্রতিপক্ষ নয়,কার্যত বন্ধু। কেননা কোনো বিষয়ে প্রত্যাখ্যান বিষয়টিকে আরও সুন্দরভাবে উপস্থাপনে আপনার দক্ষতা বৃদ্ধি করে। যখন প্রত্যাখ্যাত হবেন নিজেকে দোষী মনে করবেন না। বরং মনে করুন, আসলে ঐ গ্রাহক বীমার উপকারিতা বুঝতে পারেন নি। তাই প্রত্যাখ্যাত হলে নিজেকে অযোগ্য মনে না করে ধৈর্য্য ধরে এগিয়ে যেতে হবে।

৪.যোগাযোগঃ গ্রাহকের সংগে আপনি যত বেশি নিয়মিত যোগাযোগ করবেন, আপনার ব্যবসার পরিধি ততই বাড়বে। বীমার মার্কেটিং এ, যার যোগাযোগ / নেটওয়ার্ক যত বেশি তার ব্যবসাও তত বেশি।

৫.পরিশ্রমঃ প্রবাদ আছে "পরিশ্রমে ধন আনে,পূন্যে আনে সুখ,আলস্যতায় দারিদ্রতা আনে,পাপে আনে দুখ"।

আপনি অত্যন্ত সচেতন ভাবে ও মনোযোগের সাথে পরিশ্রম করুন, দেখবেন আপনার সফলতা সুনিশ্চিত।

পরিশেষে বলতে চাই, আপনি ইতিবাচক ভাবে চিন্তা করুন, আপনার কর্মক্ষেত্র বিস্তৃত, পেশা স্বাধীন, হেরে যাবার জন্য আপনার জন্ম হয়নি, আত্মবিশ্বাসের সাথে এগিয়ে যান, আঁকাবাঁকা পথ পাড়ি দিয়েই একসময় আপনি বীমা পেশায় সফলতার শীর্ষে পৌঁছে যাবেন।

লেখক: মোশাররফ হোসেন (এ,এম,ডি)
ইসলামী আদর্শ বীমা প্রকল্প
সানলাইফ ইন্সিওরেন্স কোম্পানী লিঃ

সদস্য: Insurance BD Group (বাংলাদেশ বীমা গোষ্ঠী)

 

[ আপনিও পারেন  “Insurance BD Group (বাংলাদেশ বীমা গোষ্ঠী)” এর একজন গর্বিত সদস্য হয়ে নিজের জ্ঞানচর্চা ও বীমা শিল্পের ইতিবাচক পরিবর্ত‍নে ভূমিকা রাখতে।  আগ্রহী ব্যক্তিগন Insurance BD Group (বাংলাদেশ বীমা গোষ্ঠী) এ যুক্ত হতে এই লিংকে ক্লিক করুন- https://www.facebook.com/groups/533586794169725/ ]


-- ব্লগার Insurance BD Group এর অন্যান্য পোস্টঃ --
আমার সম্পর্কে
  • সর্বশেষ ব্লগ
  • জনপ্রিয় ব্লগ
2 2 3 6 5
আজকের প্রিয় পাঠক
2 4 3 3 6 6 6 6
মোট পাঠক