• বীমা সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সৃষ্টি বাংলাদেশের সর্বপ্রথম বীমা ব্লগে আপনাকে স্বাগতম
আজ মঙ্গলবার | ১৪ জুলাই, ২০২০ | ৩০ আষাঢ় ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | সময়ঃ ০৭:১৯ অপরাহ্ন

Photo
কোম্পানি সেক্রেটারি হিসেবে ক্যারিয়ার গড়ার উপায় ,পার্ট-২

এ পেশায় আগ্রহী হলে আপনি প্রথমে কোনো একটি রেজিস্টার্ড কোম্পানিতে আপনার ক্যারিয়ার শুরু করতে পারেন। কাজকে অভিজ্ঞতা অর্জনের মাধ্যমে ধীরে ধীরে পাবলিক সেক্টরের কাজের দিকে অর্থাৎ লোকাল অথোরিটি, চ্যারিটি, ইউনিভার্সিটি অথবা বিভিন্ন হসপিটাল ট্রাস্টে কাজ করার অভিজ্ঞতা অর্জন করতে পারেন। সিনিয়র লেভেলে একজন কোম্পানি সচিব তার কাজের পাশা-পাশি চিফ অপারেটিং অফিসার অথবা প্রধান মানব-সম্পদ ব্যবস্থাপক অথবা প্রধান প্রশাসক অথবা প্রধান কম্প্লায়েন্স অফিসার অথবা ক্ষেত্র বিশেষে ম্যানেজিং ডিরেক্টরের দায়িত্বও পালন করে থাকেন। কোম্পানির অ্যাডমিনিস্ট্রেশন, অর্থনৈতিক ও রেগুলেটরি রিকোয়ারমেন্ট সম্পর্কে বোর্ড অফ ডিরেক্টরের মূল পদের কাজ করে থাকেন তিনি। চলুন জেনে আসি, কীভাবে একজন কোম্পানির সেক্রেটারি হিসেবে ক্যারিয়ার গড়া সম্ভব।

একজন কোম্পানি সেক্রেটারি কী কী কাজ করে থাকেন?
কোম্পানি বা অরগানাইজেশনভেদে একজন কোম্পানি সেক্রেটারির কাজ ভিন্ন ভিন্ন হয়ে থাকে। যদিও বেশিরভাগ অরগানাইজেশন বা কোম্পানিতে, একজন কোম্পানি সেক্রেটারিকে যেসব কাজ করতে হয়, সেগুলো হচ্ছে,
 কোম্পানি আইনের সাথে সবসময় আপ টু ডেট থাকা।
 বাৎসরিক কোম্পানি রিপোর্ট তৈরি করা।
 বিভিন্ন কোম্পানি মিটিং সংঘটিত করা।
 বাৎসরিক জেনারেল মিটিং ও বোর্ড মিটিংয়ের ব্যবস্থা করা ও সুশৃঙ্খলভাবে তা সম্পন্ন করার দিকে খেয়াল রাখা।
 বোর্ড অফ ডিরেক্টরদের কাজের দিকে মনোযোগ দেয়া।
 শেয়ারহোল্ডারদের ও স্টেকহোল্ডারদের দিকে খেয়াল রাখা।
 কোম্পানি হাউস ও স্টক এক্সচেঞ্জে কোম্পানির শেয়ারের দিকে খেয়াল রাখা।
 বিভিন্ন আইনি সমস্যার দেখাশোনা করা ও সেগুলো নিয়ে কাজ করার জন্য আইনজীবীদের সাথে মিটিং করা।
 অডিটর ও বিভিন্ন ডিপার্টমেন্টের কাজের অগ্রগতির দিকে খেয়াল রাখা।
 শেয়ার অপশন ও পে-স্কেল মেইনটেন্সের দিকে নজর দেয়া।
 লিগ্যাল রেসপন্সিবিলিটি, টার্মস এন্ড কন্ডিশনস এবং লিগ্যাল প্রসিডিউর সম্পর্কে ডিরেক্টর ও বোর্ড মেম্বারদের অবগত করা।
 স্বাস্থ্য, সুরক্ষা, নিরাপত্তা, প্রোপার্টি এবং জেনারেল ম্যানেজমেন্টের দায়িত্ব পালন করা।

একজন কোম্পানি সেক্রেটারি হিসেবে ক্যারিয়ার গড়তে চাইলে, আপনাকে যেসকল বিষয়ে পারদর্শী হতে হবে সেগুলো হচ্ছে,
• কর্পোরেট গভর্ন্যান্স, এমপ্লয়ি শেয়ার, চ্যারিটি ম্যানেজমেন্ট, কোম্পানির আইন ও প্রসিডিউর সম্পর্কে জানতে হবে।
• অসাধারণ যোগাযোগ দক্ষতা থাকতে হবে।
• নেগোসিয়েশনের দক্ষতা থাকতে হবে।
• ক্ষুদ্র থেকে ক্ষুদ্রতর বিষয় নিয়ে ঘাটাঘাটি করার ধৈর্য ও দক্ষতা থাকতে হবে।
• যেকোনো সমস্যার সমাধান করার দক্ষতা থাকতে হবে।
• মিতব্যয়ী হিসেবে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।
• বিভিন্ন অরগানাইজেশনের সাথে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।
• ব্যবসা ও অর্থনীতির আইন সম্পর্কে যথাযথ জ্ঞান থাকতে হবে।
• কাজের প্রতি যথেষ্ট সম্মান প্রদর্শনের মনোভাব থাকতে হবে।
• জাজমেন্ট সম্পর্কে জানতে হবে।
• ডেডলাইনের পূর্বেই কাজ সম্পন্ন করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।
• ব্যবসায়ের মেমোরেন্ডাম ও আর্টিকেলস অফ অ্যাসোসিয়েশন সম্পর্কে জানতে হবে।
• পরিসংখ্যান ও রেজিস্টার সম্পর্কে যথেষ্ট ধারণা থাকতে হবে।
• অ্যাকাউন্ট রিপোর্ট ও শেয়ার রেজিস্ট্রেশন করার দক্ষতা থাকতে হবে।
• ব্যবসা ও ম্যানেজমেন্টে পারদর্শী হতে হবে।
• ব্যবসায়িক মনোভাবে কাজ করার পারদর্শীতা থাকতে হবে।
• দলগতভাবে কাজ করার অভিজ্ঞতা থাকতে হবে।
• কর্পোরেট ইস্যু ও কোম্পানির কনফিডেন্সিয়াল তথ্যের যথাযথ দেখাশোনা করার দক্ষতা থাকতে হবে। (চলবে...)


-- ব্লগার Md.Noor- Ul -Alam ACS, এর অন্যান্য পোস্টঃ --
  • সর্বশেষ ব্লগ
  • জনপ্রিয় ব্লগ
2 0 2 2 3
আজকের প্রিয় পাঠক
2 4 5 6 5 7 6 1
মোট পাঠক