• বীমা সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সৃষ্টি বাংলাদেশের সর্বপ্রথম বীমা ব্লগে আপনাকে স্বাগতম
আজ বুধবার | ২১ অক্টোবর, ২০২০ | ৫ কার্তিক ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | সময়ঃ ০১:৪৪ পূর্বাহ্ন

Photo
‘লিডারশিপ এন্ড মোটিভেশ’ একটি আত্মউন্নয়নমূলক বই

আলহামদুলিল্লাহ! আমার লেখা ৩য় বই ‘লিডারশিপ এন্ড মোটিভেশন’এর প্রচ্ছদ তৈরী শেষে এখন ছাপাখানায় প্রিন্টিং চলছে খুবই শীঘ্রই আপনাদের হাতে বইটি তুলে দিতে পারব বলে আশা করছি। আমার সকল ফেসবুক ফেন্ড, ফলোয়ার্স ও শুভাকাঙ্ক্ষীদের কাছে দোয়া চাই, এই বইয়ের মাধ্যমে দেশের দশের উন্নয়নের স্বার্থে মানুষের মনে নেতৃত্বের সুপ্ত প্রতিভা জাগ্রত করে প্রেষণা দ্বারা সাফল্যের সঠিক রাস্তা খুঁজতে সহয়তা করতে পারি।

‘লিডারশিপ এন্ড মোটিভেশন’বই এর ভূমিকাঃ

মানুষ সামাজিক জীব হিসেবে একটি সমাজে তাকে বসবাস করতে হয়, মিশতে হয় অনেক মানুষের সাথে। অনেক সময় বিভিন্ন ভাবে নেতৃত্ব প্রদান করতে হয়। আর নেতৃত্ব এমন একটি বিষয় যার প্রয়োজনীয়তা ব্যক্তি, সামজ, রাজনীতি বা কর্মজীবনে সর্বত্র পরিলক্ষিত হয়। ঠিক এ কারণেই নেতৃত্ব প্রদানে জানা দরকার বিভিন্ন কলা-কৌশল সম্পর্কে। অন্যদিকে নেতৃত্বের সাথে প্রেষণা ওতপ্রতভাবে জড়িত। সুষ্ঠ ও সঠিক ভাবে নেতৃত্ব প্রদানে মোটিভেশন বা প্রেষণার কোনো বিকল্প নেই। কারণ যোগ্য নেতা হতে হলে নিজেকে ও দলের অনুসারীদের সর্বদা অনুপ্রাণিত, উৎসাহিত ও প্রাণবন্ত রাখতে হয়। যা আপনি বই পড়ার মাধ্যমে সহজে রপ্ত করতে পারবেন। এখন আপনার মনে প্রশ্ন আসতে পারে আমরা প্রচুর বই পড়ি তবে সেগুলির বেশিরভাগটি ভুলে যাই। তাহলে বই পড়ে লাভ কী?
বিষয়টি আরও সহজভাবে উপস্থাপনের জন্য একটি গল্প বলি, কোনো একসময় এক মহান গুরু ছিলেন এবং তাঁর কাছে অধ্যয়নরত অনেক শিষ্য ছিল। একদিন এক শিষ্য তার গুরুর কাছে এসে জিজ্ঞেস করলো, "গুরুজি, আমি তো অনেক বই পড়েছি কিন্তু তার অধিকাংশই আজ বিস্মৃত। যা পড়েছি তা যদি এমন বিস্মরণ-ই হয় তাহলে বই পড়ে লাভটা কী হল?"

গুরুজি সেই সময় কোনো প্রত্যুত্তর দিলেন না; মৌনতা অবলম্বন করে রইলেন।
কিছুদিন পর গুরুজি তার ঐ শিষ্যকে কাছে ডেকে হাতে একটি নোংরা এবং জরাজীর্ণ ছাঁকুনী (চালুনী) ধরিয়ে দিল এবং বলল, "বৎস, এই ছাঁকুনীটা দিয়ে ঐ পাশের নদী থেকে জল নিয়ে এসো"

কথাটা তার মনঃপুত হল না কিন্তু গুরুজিকে তো অসম্মানও করা যায় না। তাই আর কোনো প্রশ্ন করলো না। শিষ্য নদীতে গেল, ছাঁকুনী ভরে নদী থেকে জল নিল এবং আশ্রমের উদ্দেশে যাত্রা করল। কিন্তু দু'পা না এগোতেই ছাঁকুনীর সব জল ছিদ্র দিয়ে পড়ে গেল। তারপন আবার নদীতে গেল এবং ছাঁকুনী ভরে জল নিল। এভাবে শিষ্যটি সারাদিন চেষ্টা করলো তার গুরুজির আদেশ মান্য করার কিন্তু ব্যর্থ হল। দুঃখভারাক্রান্ত মন নিয়ে শিষ্য তার গুরুর কাছে এসে বলল, "গুরুজি, আমি ঐ ছাঁকুনী দিয়ে নদী থেকে জল নিয়ে আসতে পারিনি। আমি ব্যর্থ হয়েছি"

গুরুজি তার শিষ্যের দিকে তাকিয়ে মৃদু হেসে বলল, “না, বৎস। তুমি ব্যর্থ হওনি। ছাঁকুনীটার দিকে একবার তাকাও”, "ছাঁকুনী নতুনের মতো হয়ে গেছে; আগের মত নোংরা এবং জরাজীর্ণ অবস্থা নেই। তুমি যখন এই নোংরা ছাঁকুনীটা দিয়ে বার বার জল নিয়ে যাবার চেষ্টা করছিলে তখন এটা পরিষ্কার হয়ে গেছে”।
তখন গুরুজি তার শিষ্যের কাছে এই এমন উদ্ভট কাজের প্রকৃত উদ্দেশ্য ব্যাখ্যা করলেন। তিনি বললেন, "কিছুদিন আগে তুমি আমাকে প্রশ্ন করেছিলে-যা পড়েছি তা যদি মনেই না রাখতে পারি তাহলে পড়ে লাভটা কী। এখন এই ছাঁকুনীর উদাহরণটাই মনে করো,
ছাঁকুনী = মন
জল = জ্ঞান
নদী = বই
বই পড়ে যদি মনে রাখতে না পার এতে কোনো ব্যাপার না। কিন্তু বই পড়লে তোমার মন অবশ্যই প্রতিনিয়ত তীক্ষ্ণ এবং শাণিত হবে।

আজ পর্যন্ত আপনি যত বই পড়ছেন। আপনার সবকিছু হয়তো মনে নেই। কিন্তু আমি এটা বলতে পারি যে, এখনকার আপনি আর আগের আপনির মধ্যে অনেক তফাৎ রয়েছে। এটি সম্ভব হয়েছে, আপনার বই পড়ার মাধ্যমে।  

আপনি বই পড়বেন এবং তা ভুলে যাবেন তা খুবই স্বাভাবিক বিষয়। তবে যত পড়বেন তত ভুলবেন, একসময় ভুলতে ভুলতেই কিছু না কিছু আপনার মনে থাকবে। আর এই সামন্য কিছু মনে থাকতে থাকতে একদিন দেখবেন নিজের অজান্তেই অনেক কিছু জানতে, শিখতে ও মনে রাখতে পেরেছেন। আমার দৃষ্টিতে বই পড়ার উদ্দেশ্য ব্রেনের ময়লা পরিস্কার করা এবং নতুন বীজ রোপন করা। আমি বিশ্বাস করি “লিডারশিপ এন্ড মোটিভেশন” বইটি আপনার ইতিবাচক চিন্তার খোরাক হবে। তখন আপনি যে কোনো বাঁধাকে অতিক্রম করে সফলতার অনেক পথ পারি দিতে পারবেন।  

পরিশেষে বলবো, ‘লিডারশিপ এন্ড মোটিভেশন’ বইটি লিখতে গিয়ে অনেক দেশবিদেশের  লেখকদের বই, পত্রিকা, ম্যাগাজিন ও অনলাইনে ইন্টারনেট থেকে বিভিন্ন তথ্য সহায়তা নিতে হয়েছে, যা আমি অকপটে স্বীকার করছি এবং সেই সকল বিখ্যাত লেখক ও গুনী ব্যক্তিদের প্রতি কৃতজ্ঞতা স্বীকার করে তাদের জন্য দোয়া করি আল্লাহ তাদের মঙ্গল করুন। কারণ তাদের কারণেই এই বই লিখতে আমি সক্ষম হয়েছি। এই ক্ষুদ্র প্রচেষ্টার মাধ্যমে আপনাদের সমান্যতম সহায়তা করতে পারলেই আমার সার্থকতা। অনিচ্ছাকৃত ভুল ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন। মুদ্রণ জনিত কোনো ভুল সম্পর্কে আমাকে অবহিত করলে চির কৃতজ্ঞ থাকবো এবং পরবর্তী প্রকাশনায় তা সংশোধিত করা হবে। ‘ইনশাআল্লাহ’

নিজেকে সর্বদা অনুপ্রাণিত, উৎসাহিত ও প্রাণবন্ত রেখে সফল নেতা হয়ে উঠুন, আপনার জন্য রইলো শুভকামনা।

মোঃ মাহমুদুল ইসলাম
ইন্স্যুরেন্স এডভাইজার এন্ড ট্রেইনার
মোবাইলঃ  +৮৮ ০১৯১৬ ০২০৯৯০
ইমেইলঃ mahmud.adviser@gmail.com




-- ব্লগার মাহমুদুল ইসলাম এর অন্যান্য পোস্টঃ --
  • সর্বশেষ ব্লগ
  • জনপ্রিয় ব্লগ
2 3 5 8
আজকের প্রিয় পাঠক
2 7 6 2 6 1 3 0
মোট পাঠক