• বীমা সচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে সৃষ্টি বাংলাদেশের সর্বপ্রথম বীমা ব্লগে আপনাকে স্বাগতম
আজ রবিবার | ০৭ মার্চ, ২০২১ | ২৩ ফাল্গুন ১৪২৭ বঙ্গাব্দ | সময়ঃ ০৯:২৫ অপরাহ্ন

Photo
জাতীয় বীমা দিবস, ২০২১ ও বঙ্গবন্ধু বীমা মেলা আয়োজন বিষয়ক বিজ্ঞপ্তি

জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান ১ মার্চ ১৯৬০ তারিখে তৎকালীন আলফা ইন্স্যুরেন্স কোম্পানীতে যোগদান করেন। গত ১৫ জানুয়ারি ২০২০ তারিখে অনুষ্ঠিত মন্ত্রিপরিষদ সভার সিদ্ধান্তের প্রেক্ষিতে জাতির পিতার বীমা স্মৃতি বিজড়িত ১ মার্চ-কে ‘জাতীয় বীমা দিবস’ হিসেবে ঘোষণা করা হয়। বীমা শিল্পের উন্নয়ন ও বীমা সম্পর্কে জনসচেতনতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে প্রতি বছর আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের আয়োজনে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষ, বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স এসোসিয়েশন এবং বাংলাদেশ ইন্স্যুরেন্স ফোরাম এর সহযোগিতায় বীমা মেলা, আলোচনা সভা এবং অন্যান্য কর্মসূচীর মাধ্যমে এ দিবসটি পালন করা হচ্ছে।

আগামী ১ মার্চ ২০২১, ১৬ ফাল্গুন ১৪২৭, সোমবার সকাল ১০:০০ টায় বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে (বিআইসিসি) জাতীয় বীমা দিবস ২০২১ উপলক্ষে আলোচনা সভা ও বঙ্গবন্ধু বীমা মেলা অনুষ্ঠিত হবে। এছাড়া দেশব্যাপী জেলা ও উপজেলা পর্যায়ে যথাযোগ্য মর্যাদায় জাতীয় বীমা দিবস উদযাপনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে। এ বছরের প্রতিপাদ্য “মুজিববর্ষের অঙ্গীকার, বীমা হোক সবার”। গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, এমপি বিআইসিসি-তে আয়োজিত অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি উপস্থিত থাকতে সানুগ্রহ সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন। উক্ত অনুষ্ঠানে সভাপতিত্ব করবেন মাননীয় অর্থমন্ত্রী জনাব আ হ ম মুস্তফা কামাল, এফসিএ, এমপি। অনুষ্ঠানে অর্থ মন্ত্রণালয়ের আর্থিক প্রতিষ্ঠান বিভাগের মাননীয় সিনিয়র সচিব জনাব মো: আসাদুল ইসলামসহ বীমা প্রতিষ্ঠানসমূহের চেয়ারম্যান, ব্যবস্থাপনা পরিচালক/ মূখ্য নির্বাহী কর্মকর্তাগণ ও সার্ভে প্রতিষ্ঠানসমূহের কর্মকর্তাগণ
উপস্থিত থাকবেন।

ঢাকাসহ দেশব্যাপী আয়োজিত কর্মসূচি ও পদক্ষেপসমূহ:

* বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে আগামী ০১ মার্চ ২০২১ তারিখ আয়োজিতব্য জাতীয় বীমা দিবসের আলোচনা সভায় গণপ্রজাতন্ত্রী বাংলাদেশ সরকারের মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা, এমপি প্রধান অতিথি হিসেবে ভার্চুয়ালি উপস্থিত থাকার সদয় সম্মতি জ্ঞাপন করেছেন। এসময় বিশিষ্ট বীমা ব্যক্তিত্বদের সম্মাননা প্রদান, বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রের Outer Pavement এ দু’দিন ব্যাপী (১-২ মার্চ, ২০২১) জাতীর পিতার জন্মশত বার্ষিকী উপলক্ষে বঙ্গবন্ধু বীমা মেলার উদ্বোধন, বঙ্গবন্ধু শিক্ষা বীমার উদ্বোধন এবং প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শনসহ নানাবিধ কর্মসূচী গ্রহণ করা হয়েছে।

* দেশব্যাপী জেলা প্রশাসন, উপজেলা প্রশাসন এবং বীমা প্রতিষ্ঠান ও সার্ভেয়র প্রতিষ্ঠানসমূহের উদ্যোগে আগামী ০১ মার্চ ২০২১ তারিখ জাতীয় বীমা দিবস উদযাপনের জন্য আলোচনা সভাসহ বিবিধ অনুষ্ঠান আয়োজনের উদ্যোগ নেয়া হয়েছে।

* এছাড়া কোভিড-১৯ মহামারিকে বিবেচনায় রেখে প্রথম জাতীয় বীমা দিবসের মত বর্ণাঢ্য র‌্যালি, সাংস্কৃতিক অনুষ্ঠান আয়োজনের পরিবর্তে কিছু উদ্ভাবনী ধারণা ভিত্তিক কার্যক্রম গ্রহণ করা হয়েছে। যার মধ্যে প্রবাসী কর্মীদের বীমা বিষয়ে ওয়েবিনার, বীমা দিবসের তাৎপর্য তুলে ধরে বিশ্ববিদ্যালয়ের শিক্ষার্থীদের নিয়ে ওয়েবিনার, জেলা- উপজেলার শহরগুলোতে সুসজ্জিত গাড়ীসমূহ প্রদক্ষিণের মাধ্যমে মুজিববর্ষের থিম সং বাজানো, বীমা প্রতিষ্ঠানসমূহের শাখা কার্যালয়সমূহের সামনে স্বাস্থ্য বিধি মেনে হিউম্যান চেইন ইত্যাদি ।

সর্বকালের সর্বশ্রেষ্ঠ বাঙ্গালী জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান বীমাশিল্পের সাথে সম্পৃক্ত ছিলেন, শুধু সম্পৃক্ত ছিলেন বললে ভূল হবে বরং ১৯৬০ সালের ১লা মার্চ সময়কালে রাজনীতি বন্ধ থাকায় দেশের আনাচে কানাচে গিয়ে পুরোজাতিকে সংঘবদ্ধ রেখে সংগ্রাম চালিয়ে নেয়ার জন্যই জাতির পিতা তখন আমাদের বীমা শিল্পকে কর্মক্ষেত্র হিসেবে বেছে নিয়েছিলেন। আর সে জন্য আমাদের বীমাখাতের দায়িত্ব অনেক বেশী, সেই প্রেক্ষিতে জাতীয় বীমা দিবসে বীমা উন্নয়ন ও নিয়ন্ত্রণ কর্তৃপক্ষের নিজস্ব অর্থায়নে চালু হতে যাচ্ছে “বঙ্গবন্ধু শিক্ষা বীমা”। কর্তৃপক্ষ জাতীর পিতার জন্ম শত বার্ষিকীতে গ্রহণ করেছে বেশ কিছু পদক্ষেপ যার মধ্যে:-
(১) কর্তৃপক্ষের দপ্তরে বঙ্গঁবন্ধুর উপর লিখিত পুস্তিকাসহ স্থাপন করা হয়েছে “বঙ্গবন্ধু কর্ণার”।
(২) জাতির পিতার জন্মশত বার্ষিকীতে স্বল্প প্রিমিয়াম অথাৎ মাত্র ১০০ টাকার কম প্রদান করে ১ বছরের জন্য ২,০০,০০০/- (দুই লক্ষ) টাকার চিকিৎসা সুবিধাসহ চালু করা হয়েছে “বঙ্গবন্ধু সুরক্ষা বীমা”।
(৩) জাতির পিতার জন্মশত বার্ষিকীতে ১৬ লক্ষাধিক প্রতিবন্ধীদের জন¨ “স্বাস্থ্য বীমা” পরিকল্প তৈরীর কাজ চুড়ান্ত করা হয়েছে।
(৪) জন্মশত বার্ষিকীতে “বঙ্গবন্ধু স্পোটর্সম্যান ইন্স্যুরেন্স” চালু করা হয়েছে।
(৫) বঙ্গঁবন্ধু জন্মশত বার্ষিকীতে জাতির পিতার জন্মদিন অথাৎ নির্ধারিত কয়েকটি বুধবারে “বঙ্গবন্ধু আশার আলো-বীমা দাবী পরিশোধের প্রয়াস” অনুষ্ঠানের মাধ্যমে বিধবা এবং পিতা-মাতা হারানো সন্তানদের মুখে তার পিতার করে যাওয়া বীমা দাবী পরিশোধের মাধ্যমে তাদের মুখে হাসি ফোঁটানোর একটি অনুষ্ঠান কর্তৃপক্ষের দপ্তরে চলমান রয়েছে।


-- ব্লগার Admin Post এর অন্যান্য পোস্টঃ --
  • সর্বশেষ ব্লগ
  • জনপ্রিয় ব্লগ
2 9 7 4 5
আজকের প্রিয় পাঠক
3 1 8 2 2 6 2 3
মোট পাঠক